সেপ্টেম্বর 30, 2022

মুদ্রাস্ফীতি: সহনশীলতার উপরে মুদ্রাস্ফীতির হার, শিল্প বৃদ্ধিতে স্বস্তি

1 min read

জুলাইয়ে মূল্যস্ফীতির হার আরও কমে ৬.৭১ শতাংশে নেমে এসেছে। কিন্তু এটি রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দিষ্ট সহনশীলতার (6%) থেকে সাত মাস বেশি।

কিছুটা স্বস্তি। আর বেশ কিছুটা দুশ্চিন্তা। শুক্রবার কেন্দ্র প্রকাশিত মূল্যবৃদ্ধি, শিল্প প্রবৃদ্ধি ও আমদানি-রপ্তানির পরিসংখ্যান দেখে সংশ্লিষ্ট মহলে এই প্রতিক্রিয়া। কারণ, জুলাইয়ে মূল্যস্ফীতির হার আরও কমে দাঁড়ায় ৬.৭১ শতাংশে। কিন্তু এটি রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দিষ্ট সহনশীলতার (6%) থেকে সাত মাস বেশি। খাদ্যশস্য ও ভোজ্যতেলের দাম কিছুটা কমেছে। সাধারণভাবে, খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিও কিছুটা নেমে এসেছে ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশে। যা জুন মাসে ছিল 7.75%। তবে কিছু বিশেষজ্ঞ মনে করেন যে এটি এখনও সাধারণ মানুষের জন্য স্বস্তিদায়ক নয়।

জুন মাসে শিল্প উৎপাদনের বৃদ্ধি 12.3% আরও আশ্বস্তকর। তবে এটি মে মাসের 19.6 শতাংশের তুলনায় বেশ কম। টানা দুই মাস এই হার ১০ শতাংশের ওপরে থাকায় এমন প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যেও অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বলে সরকারের দাবি। কলকারখানা, বিদ্যুৎ, খনি, ভোগ্যপণ্যসহ সব খাতে উৎপাদন বেড়েছে। কিন্তু রেকর্ড বাণিজ্য ঘাটতি দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে দিয়েছে। জুলাইয়ে রপ্তানি আগের বছরের তুলনায় 2.14% বেড়ে $36.27 বিলিয়ন হয়েছে, আমদানি আরও বেড়েছে, 43.61%। 6627 মিলিয়ন ডলার। ফলে ঘাটতি রেকর্ড 3000 মিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে।

আর্থিক বিশেষজ্ঞ মহানন্দ কাঞ্জিলাল বলেন, উচ্চমূল্য আর্থিক প্রবৃদ্ধির পথে বড় চ্যালেঞ্জ। তার উপরে বাণিজ্য ঘাটতি বেড়েছে তিনগুণ। যা আবার টাকার দামের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে। ডলারের মূল্য বাড়লে আমদানি ব্যয় আরও বাড়বে।

বিশ্ববাজারেও অস্থিরতা রয়েছে। কারণ হল এপ্রিল-জুন মাসে ব্রিটেনে জিডিপির সংকোচন এবং বছরের শেষে ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের মন্দার ইঙ্গিত৷ আইআইটি পাটনার অর্থনীতির অধ্যাপক রাজেন্দ্র পারমাণিকের মতে, ব্রিটেন এবং আমেরিকার মতো উন্নত দেশে মন্দা দেশের বাণিজ্য ঘাটতি বাড়িয়ে দিতে পারে। বৈশ্বিক চাহিদা কমে গেলে ভারতের রপ্তানি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। বাণিজ্য ঘাটতি বাড়তে পারে। তাহলে টাকার দাম কমতে পারে। ভারতের তেল কেনার খরচ বৃদ্ধির ফলে জ্বালানির দাম বৃদ্ধি পাবে।