আগস্ট 18, 2022

মূল্যবৃদ্ধি: ডলার-তেলের দাম বাড়ছে, বাড়ছে উদ্বেগ

1 min read

যদিও কিছু দেশ শক্তি সঙ্কট এবং খরচ নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশ কিছু কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে, ভারত সেরকম কিছুই দেখেনি।

একদিকে জ্বালানির চড়া দাম। অন্যদিকে, ক্রমবর্ধমান ডলার – এই দ্বিগুণ চাপ বিশ্বের অনেক অর্থনীতিকে বড় উদ্বেগের সম্মুখীন করেছে। সংকট শ্রীলঙ্কার মতো গভীর না হলেও পাকিস্তানসহ কয়েক ডজন দেশ একই পথে হাঁটছে। রাশিয়া থেকে তেল ও গ্যাস সরবরাহ কমানো বা বন্ধ করায় ইউরোপ জ্বালানি সংকটে ভুগছে। ভারতের নীতিনির্ধারকরাও চিন্তিত। কারণ, ডলারের তুলনায় টাকার দাম কমছে। ফলে তেলের উচ্চমূল্যের কারণে জ্বালানি আমদানি ব্যয় বাড়ছে। এবং ভারত সেই দেশের তালিকায় রয়েছে যেখানে অপরিশোধিত তেল এবং কয়লা আমদানি বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভকে হ্রাস করে।

যদিও কিছু দেশ শক্তি সঙ্কট এবং খরচ নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশ কিছু কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে, ভারত সেরকম কিছুই দেখেনি। যেমন, বাংলাদেশ ডিজেল চালিত বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদিন এক থেকে দুই ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হচ্ছে। বিদ্যুৎ উৎপাদনে প্রচুর গ্যাস ও ডিজেল লাগে। উদ্দেশ্য সেই খাতে খরচ কমানো। যদিও ভারতে এ ধরনের পদক্ষেপ বর্তমানে বাস্তবসম্মত নয়। তার বদলে এই পরিস্থিতিতে রাশিয়ার কাছ থেকে সস্তায় অপরিশোধিত তেল কেনা বাড়াতে চাইছে কেন্দ্র। প্রকৃতপক্ষে, স্বাধীনতার 75 বছর পরেও, ভারত অনেক পণ্য এবং কাঁচামালের জন্য আমদানি নির্ভর।

ভারতের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমছে মূলত আমদানি করা জ্বালানির খরচ মেটাতে। গত অক্টোবরে এই রিজার্ভ ছিল $64,000 কোটি। ১৫ জুলাই শেষ হওয়া সপ্তাহে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৫৭,২৭১.২ কোটিতে। একদিকে জ্বালানি আমদানি, অন্যদিকে শেয়ারবাজার থেকে বিদেশি বিনিয়োগ, টাকার অঙ্কে ডলারের মূল্য বাড়ছে। এটি যাতে চেক করা না হয় তার জন্য, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক মাঝে মাঝে তার রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করছে। এতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আরও সঙ্কুচিত হয়।

ডলারের দাম এখন ৮০ টাকার কাছাকাছি। গত জানুয়ারিতে আমেরিকান মুদ্রার দর ছিল ৭৪ টাকা। অর্থাৎ সাত মাসে রুপির দাম কমেছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ। তবে শুধু ভারতেই নয়, ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে অনেক দেশেই মুদ্রার দাম কমেছে। ইউরো আর ডলার এখন প্রায় সমান। 1 ডলার বাংলাদেশে 94 টাকা, পাকিস্তানে 225 টাকা, শ্রীলঙ্কায় 360 টাকা, চীনে 6.75 ইউয়ান এবং জাপানে 138 ইয়েন। ভারতীয় ডলারের মূল্য বৃদ্ধি মানে সব ধরনের আমদানি ব্যয় বৃদ্ধি। অধ্যয়ন এবং বিদেশ ভ্রমণের খরচ বৃদ্ধি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে 27-28 জুলাই আরেকটি বিস্তৃত সুদের হার বৃদ্ধির ফলে উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। তা হলে ভারতে ডলারের দাম বাড়তে পারে। ভারতকেও সুদের হার বাড়াতে হতে পারে। দুই দেশেই সুদের হার বাড়লে পুঁজিবাজার আবার দুর্বল হতে পারে।

যাইহোক, ক্রমাগত পতনের পরে, সেনসেক্স টানা ছয় দিনে 2311 পয়েন্ট বেড়ে 56,072 পয়েন্টে স্থির হয়। নিফটি 670 পয়েন্ট বেড়ে 16,719 এ পৌঁছেছে। বিদেশী বিনিয়োগকারীরা বিক্রি বন্ধ করে ক্রেতা হিসেবে ফিরে আসায় বাজার তার শক্তি ফিরে পায়। মিউচুয়াল ফান্ডও এই উচ্ছ্বাসে কিছুটা প্রাণ পেয়েছে। কিন্তু সুদের হার আবার বাড়লে সূচকের গতিপথ কী দাঁড়ায়, তা নিয়ে এখন সংশ্লিষ্ট মহল।