নভেম্বর 28, 2022

সোনার দাম: ডলার, বন্ড বিনিয়োগ সোনার দাম কমিয়ে দিচ্ছে

1 min read

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, পনের দিন আগে আন্তর্জাতিক বাজারে সোনার দাম প্রতি আউন্স ১৮০৫ ডলার ছিল, শনিবার তা দাঁড়িয়েছে ১৭৪৮ ডলারে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুদ্রার বিপরীতে ডলারের মূল্য বেড়েছে। তার উপরে, ফেডারেল রিজার্ভ আমেরিকায় সুদের হার আরও বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছে। মূলত, এই দুটির কারণেই বিনিয়োগকারীরা স্বর্ণ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে এবং মার্কিন বন্ডে ঢেলে দিচ্ছে। ফলে শুধু বিশ্ববাজার নয়, ভারতেও গত এক সপ্তাহে সোনার দাম অনেকটাই কমেছে। এই কয়েকদিনে কলকাতায় ১০ গ্রাম খাঁটি সোনা (২৪ ক্যারেট) নেমেছে ৯০০ টাকায়। শনিবার এটি ছিল 52,450 টাকা। বাজার মহল সূত্রে জানা গেছে, যারা বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য শুধু গহনা কেনেন না তারাও এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করে দোকানের দিকে পা বাড়ান।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, পনের দিন আগে আন্তর্জাতিক বাজারে সোনার দাম প্রতি আউন্স ১৮০৫ ডলার ছিল, শনিবার তা দাঁড়িয়েছে ১৭৪৮ ডলারে।

অ্যাসোসিয়েশন অফ গোল্ড রিফাইনারিজ অ্যান্ড মিন্ট সেক্রেটারি হর্ষদ আজমেধা বলেন, “মূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে অপরিশোধিত তেলের দামও কমছে। অর্থনীতিতে অনিশ্চয়তা রয়েছে। তাই ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও বিনিয়োগকারীরা ডলার ও বন্ডে বিনিয়োগ বাড়াচ্ছেন। ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। আমেরিকায় সেপ্টেম্বরে ক্রেডিট পলিসিতে ফেড আবারও সুদের হার বাড়াবে। সেক্ষেত্রে সোনার দাম আরও কমতে পারে।”

সেভ গোল্ড ইন্ডাস্ট্রি কমিটির কার্যনির্বাহী সভাপতি সমর দে বলেন, “বাজার দশ দিন ধরে শক্তিশালী ছিল। অল ইন্ডিয়া জেম অ্যান্ড জুয়েলারি ডোমেস্টিক কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আশিস পেঠও বলেছেন, “জুলাইয়ের তুলনায় জুয়েলারি বিক্রি 15% বেড়েছে৷ আশা করি, উৎসবের সময় চাহিদা বাড়বে।” এই প্রসঙ্গে, ডোমেস্টিক কাউন্সিলের প্রাক্তন চেয়ারম্যান নীতিন খান্ডেলওয়াল কঠিন সময়ে সোনার উপর নির্ভর করার কথা স্মরণ করেন। তবে, প্রাক-করোনা স্তরে পৌঁছতে চাহিদার জন্য সময় লাগবে, বিশ্বাস করেন বেলঘরিয়ার ছোট গহনা ব্যবসায়ী কৌশিক পোদ্দার।